মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৩rd এপ্রিল ২০১৭

মনিরুজ্জামান কমিশন ২০০৩

শিক্ষার গুণগতমান অব্যাহতভাবে বৃদ্ধির লক্ষে ২০০৩ সালের জানুয়ারি মাসে শিক্ষা কমিশন গঠন করা হয়। এই কমিশন মার্চ ২০০৪ সালে তাদের প্রতিবেদন সরকারের নিকট দাখিল করে। কমিশনের প্রতিবেদনে শিক্ষার সকল সাব-সেক্টর এর তিনটি ভাগে মোট ৮৮০টি পরামর্শ প্রদান করা হয়। প্রতিবেদনের সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিম্নরূপ :

পার্ট-১

সাধারণ শিক্ষা

প্রাথমিক শিক্ষা

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা

উচ্চ শিক্ষা

পার্ট-২

প্রেফেশনাল শিক্ষা

কৃষি শিক্ষা

প্রযুক্তি শিক্ষা

মেডিক্যাল শিক্ষা

পার্ট-৩

বিশেষায়িত শিক্ষা

মাদ্‌রাসা শিক্ষা

মূলধারার মহিলাদের জন্য শিক্ষা

আই.সি.টি. শিক্ষা

দূরশিক্ষা পদ্ধতি

লাইব্রেরি এবং তথ্যবিজ্ঞান শিক্ষা

 

প্রধান উদ্দেশ্য: স্বল্পতম সময়ে দেশের সকল জনগোষ্ঠীকে মানব সম্পদে রূপান্তর করাই শিক্ষার মুল লক্ষ্য। 

শিক্ষার অভিগম্যতা :  জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে শিক্ষায় সবার জন্য সমান সুযোগ নিশ্চিত করা ।

গুণগত শিক্ষা: শিক্ষার সকল স্তরে গুণগত মান বজায় রাখার জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ।

স্কুলে ভর্তির বয়স : শিশুর বষয় ৫ বছর অতিক্রম করলেই বাধ্যতামূলকভাবে স্কুলে ভর্তি করা।

প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ: স্বল্পতম সময়ে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করা।

শিক্ষক ও ছাত্র অনুপাত: শিক্ষক-ছাত্রের অনুপাত কমিয়ে আনার নীতি অনুসরণ করে প্রাথমিকে ১:৩০ শিক্ষক-ছাত্র অনুপাত এবং মাধ্যমিক ১:৪০ শিক্ষক-ছাত্রের অনুপাতে নিয়ে আসা।

শিক্ষার লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য:  প্রাথমিক, মাধ্যমিক এবং উচ্চশিক্ষার স্তরে শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য পূর্ব নির্ধারিত থাকতে হবে।

শিক্ষা কাঠামো: বিদ্যমান শিক্ষা কাঠামো নীতিগতভাবে মেনে চলা।

শিক্ষার বিভিন্ন ধারার মধ্যে সমন্বয়: শিক্ষার বিভিন্ন ধারার মধ্যে সমন্বয়ের মাধ্যমে কারিকুলামের বেশির ভাগ অংশ প্রণয়ন করা ।

একমুখী মাধ্যমিক শিক্ষা : একমুখী মাধ্যমিক শিক্ষা প্রবর্তন।

গ্রামাঞ্চলে শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি:  গ্রামাঞ্চলে Under Served এলাকায় নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপন করে শিক্ষার সুযোগ বৃদ্ধি করা ।

গ্রামা